Wednesday, December 19, 2018

ঘরে বসে লাখপতি হোন।

অনলাইন ভিত্তিক অর্থ উপার্জনের ১০০% নিশ্চয়তা দিয়ে ডি.আই.টি-তে বিভিন্ন কোর্স-এ ভর্তি চলিতেছে..!

মোবাইলঃ-01763-023348

নির্যাতন করে এক বাংলাদেশীকে হত্যা করেছে বিএসএফ

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি, সোনারদেশ২৪ডটকমঃ

সীমান্তে বাংলাদেশিদের আর গুলি করে নয় শারীরিকভাবে নির্যাতন করে হত্যা করছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ। এসব ঘটনা পর বিএসএফের পক্ষ থেকে মৃত্যুর কথা অস্বীকারও করা হচ্ছে।

বুধবার ভোরে এমনই এক ঘটনা ঘটেছে ভুরুঙ্গামারী সীমান্তে। নির্যাতনে নিহত ব্যক্তির নাম আব্দুল বারেক (৩৫)। এর আগে মঙ্গলবার একজনকে হত্যা করে বিএসএফ।

এ ঘটনার পর বিষয়টি নিয়ে বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শেষ পর্যন্ত থানা পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

সকাল ৬টায় কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার শিলখুড়ি ইউনিয়নের কাইজারচর সীমান্তে আব্দুল বারেক (৩৫) নামের এক রাখালকে নির্যাতন করে বাড়ির পাশে ছেড়ে দেয় বিএসএফ। এরপর তিনি স্থানীয় এক ভাইয়ের বাড়িতে এসে এক গ্লাস পানি খেয়েই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। নিহত বারেক উত্তর ধলডাঙ্গা গ্রামের এন্তাজ আলীর ছেলে।

একই কায়দায় চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি ওই শালঝোড় কাইজারচর সীমান্তের ৯৮৮ নম্বর সীমানা পিলারের কাছে গরু ব্যবসায়ী আব্দুল গণিকে (৫০) পিটিয়ে হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে দেয়। ওইবারও দু’দফা পতাকা বৈঠক হলেও ঘটনা অস্বীকার করে ভারতের ৯৮ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের ঝুলোলী ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা।

ওই ঘটনায় বিএসএফের নির্যাতন থেকে বেঁচে যাওয়া দুই ব্যবসায়ী আলাউদ্দিন ও রইস উদ্দিন আহত অবস্থায় ফিরে এসে প্রথমে গোপনে চিকিৎসা নিলেও পরে ঘটনা জানাজানি হয়।

আব্দুল বারেকের পরিবার জানায়, মঙ্গলবার বিকেলে ভারতের ভিতর থেকে গরু আনতে তাকে কে বা কারা ফোনে ডাকে। বিকেলে সীমান্তের ৯৯৮ এর সাব ৬নং আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের কাছ দিয়ে ভারতে প্রবেশ করে। ভোর ৬টার দিকে গোঙ্গাতে গোঙ্গাতে দৌড়ে এক ভাইয়ের বাড়িতে এসে পানি খেতে চায়। তাকে দ্রুত পানি দেয়া হলে ভয়ে নিস্তেজ হয়ে পড়েন। এসময় স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এলাকাবাসী জানান, তিনি মাঝে মধ্যে ভারত থেকে গরু আনতেন। বিভিন্ন ব্যবসায়ীর গরু কাটাতার পার করে দিলে এক জোড়া গরুতে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা পেতেন তিনি। তা দিয়ে সংসার চলতো তার।

কয়েকজন জানান, মৃত দেহে আঘাতের অসংখ্য চিহ্ন পাওয়া গেছে।

সংবাদ পেয়ে পুলিশ ও বিজিবি ঘটনাস্থল থেকে সুরতহাল শেষে মৃতদেহ উদ্ধার করে। এসময় বিজিবির পক্ষ থেকে বিএসএফকে পতাকা বৈঠকের জন্য চিঠি দেয়া হয় বলে জানিয়েছে বিজিবি। তবে বৈঠকে এসে নির্যাতনের কথা অস্বীকার করেছে বিএসএফ।

নিহতের বাবা এন্তাজ আলী ইন্তু বলেন, আমার ছেলের শরীরে অনেক মারের আঘাত। তাকে রাইফেলের গোড়া দিয়ে আঘাত করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৮ জানুয়ারি গরু পারাপারের সময় আব্দুল গণি, আলাউদ্দিন ও রইস উদ্দিনকে ধাওয়া করে ধরে বেধড়ক পেটায় বিএসএফ। এতে শিলখুড়ি ইউনিয়নের দক্ষিণ ধলডাঙ্গা গ্রামের সুজুর উদ্দিনের ছেলে আব্দুল গণি ঘটনাস্থলে মারা যায়। আহত আলাউদ্দিন ও রইস উদ্দিন কৌশলে পালিয়ে এসে প্রথমে ভুরুঙ্গামারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে আত্মগোপন করেন। বিএসএফরা ঘটনা ধামাচাপা দিতে আব্দুল গণির মরদেহ সীমান্তবর্তী কালজানী নদীতে ফেলে দেয়। ঘটনার পর দুপুরে বিজিবি এর প্রতিবাদ জানিয়ে পতাকা বৈঠকের জন্য চিঠি দিলে পরপর দু’দফা বৈঠক হলেও আব্দুল গণিকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ অস্বীকার করে বিএসএফ।

বৈঠকে বিজিবির পক্ষ থেকে ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়। বিএসএফের পক্ষে গরু ব্যবসায়ীদের ধরে নিয়ে যাওয়া, মারপিটের ঘটনা অস্বীকার করা হয়। পরে মরদেহ উদ্ধার করে ভুরুঙ্গামারী থানা পুলিশে হস্তান্তর করে বিএসএফ।

শিলখুড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, বিএসএফ নির্যাতন করে মেরেছে সীমান্তবাসীরা সবাই বলছে। এর আগেও বিএসএফ একজনকে পিটিয়ে মারলো। কিন্তু স্বীকার করলো না।

ভুরুঙ্গামারী থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ জিয়া লতিফুল ইসলাম বলেন, মৃতদেহের বুকসহ কয়েকটি স্থানে আঘাদের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম ৪৫ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ পরিচালক লে. কর্নেল জাকির হোসেন জানান, সীমান্ত এলাকায় একজনের বাড়িতে বারেক মারা গেছেন।

Check Also

sonardesh24.com

বৈদেশিক কর্মসংস্থানে সরকারের আরো উদ্যোগ গ্রহণ

সোনারদেশ২৪: ডেস্কঃ সরকার স্বল্প ব্যয়ে নিরাপদ অভিবাসন ও সহজ পদ্ধতিতে বৈদেশিক কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে নানা উদ্যোগ ...

সম্পাদকঃ জিয়া্উল হক, নির্বাহী সম্পাদকঃ নওশাদ আহমেদঠিকানাঃ কমিউনিটি হাসপাতাল (৫ম তলা) মুজিব সড়ক, সিরাজগঞ্জ।
ফোনঃ ০১৬৮৩-৫৭৭৯৪৩, ০১৭১৬-০৭৬৪৪৪ ইমেইলঃ sonardesh24.corr@gmail.com, sonardesh24@yahoo.com